ওয়ার্ডপ্রেস কি? থিম, প্লাগিন কি? নতুনদের জন্য সম্পূর্ণ গাইড লাইন

ওয়ার্ডপ্রেস কি? (What is WordPress)

ওয়ার্ডপ্রেস কি

ওয়ার্ডপ্রেস কি? এটি খুব সাধারণ একটি প্রশ্ন। এই পোস্টে আমরা ওয়ার্ডপ্রেস (WordPress), ওয়ার্ডপ্রেস থিম ওপ্লাগিন কি তা সম্পর্কে জানব।

এক কথায় বললে ওয়ার্ডপ্রেস একটি ওপেন সোর্স (Open Source) কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (Content Management System) বা CMS।

ফলস্বরূপ, আপনি এই চমৎকার টুল দ্বারা কোডিং ও প্রোগ্রামিং সম্পর্কে কোন রকম জ্ঞান ছাড়াই একটি ওয়েবসাইট ডিজাইন এবং ডেভেলপ করতে পারবেন।

এখন একটি প্রশ্ন তৈরী হয় যে, কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম বা CMS কি?

একইভাবে কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম হচ্ছে ওয়েবসাইটের মতো একটি প্ল্যাটফর্মে কনটেন্ট পরিচালনা করার একটি সহজ মাধ্যম।

একটি ওয়েবসাইটে যে প্রবন্ধ (Article), ইমেজ (Image), অডিও (Audio), ভিডিও (Video) ইত্যাদি থাকে তাই উক্ত ওয়েবসাইটের কনটেন্ট।

বাজারে অনেক কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম রয়েছে, যথা: Drupal, Joomla, Magento, TYPO3, Bitrix ইত্যাদি ।

ওয়ার্ডপ্রেস সারা বিশ্বের সেরা এবং সবচেয়ে জনপ্রিয় কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। ইন্টারনেটে প্রায় 36% ওয়েবসাইট এর দ্বারা তৈরী।

ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করা কতটা কঠিন?

wordpress bangla

ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করা খুবই সহজ। যে কেউ প্রথম বার এর ইন্টারফেস এবং ফাংশনালিটি সহজেই বুঝতে পারবে ।

এ ছাড়া, ওয়ার্ডপ্রেস খুবই ইউজার ফ্রেন্ডলি (User Friendly)। আমার মনে হয়, এটা নতুনদের জন্য বেস্ট চয়েছ ।

যে কেউ চেষ্টা করলে এটি দিয়ে খুব সহজেই ফ্রিতে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবে।

এর ড্যাশবোর্ড (Dashboard) নতুন্দের জন্য খুবই সহজ মনে হবে। তাই যে কেউ কোনও দ্বিধা ছাড়াই ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করতে পারে।

ওয়ার্ডপ্রেস সঠিকভাবে ব্যবহার করতে হলে ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ও থিমের সঠিক ব্যবহার সম্পর্কে জানতে হবে ।

প্লাগিন একটি বা একাধিক নতুন ফিচার যোগ করে, এবং থিম একটি ওয়েবসাইটের চেহারা (Appearance), মানে ওয়েবসাইটি কিভাবে গঠিত হবে তা প্রকাশ করে । সাধারণত ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন এবং থিম হ্যান্ডেল করা খুবই সহজ।

সম্প্রতি, ওয়ার্ডপ্রেস অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে অগনিত ফ্রি প্লাগিন এবং থিম রয়েছে। সুতরাং, একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট নির্মাণের জন্য রিসোর্স এর কোনো অভাব নেই।

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন কি? (What is WordPress Plugin)

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন (Plugin) একাধিক ফাংশন দিয়ে গঠিত একটি মিনি সফটওয়্যার যা আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ডে এক বা একাধিক ফিচার যোগ করবে।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি “Updateplus” প্লাগিনটি ইনস্টল (install) করেন, তাহলে আপনি আপনার পুরো সাইটটি ব্যাকআপ করতে পারবেন । অর্থাৎ, ব্যাকআপ ফিচারটি (Feature) আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ডে যোগ হবে।

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ব্যবহার করা খুবই সহজ । সুতরাং, আপনি প্লাগিন ব্যবহার করে প্রায় সব ফিচর এড করতে পারেন।

একটি ওয়েবসাইট নির্মাণের আগে, আপনাকে অবশ্যই একটি পেজ বিল্ডার  প্লাগিন (Page Builder Plugin) নির্বাচন করতে হবে। পেজ বিল্ডার প্লাগিন একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট তৈরি করতে সাহায্য করে ।

আপনি এলিমেন্টর (Elementor) পেজ বিল্ডার প্লাগিন ব্যবহার করতে পারেন কারণ এটি নতুনদের ব্যবহার করা সহজ। তাছাড়া এটি একটি দারুন পেজ বিল্ডার প্লাগিন।

এ ছাড়া, একটি সম্পূর্ণ ওয়েবসাইট তৈরি করতে আপনাকে ইনস্টল করতে হবে এমন অনেক প্লাগিন আছে। আমি নিচে বেশ কিছু প্লগিনের নাম বলছি। কোনটি কি কাজের নিচ থেকে দেখে নিতে পারেন।

  • WP Forms: এই প্লাগিন আপনাকে একটি কন্টাক্ট ফর্ম (Contact Form) তৈরি করতে সহায়তা করে যাতে ভিজিটরা আপনার সাথে দ্রুত সংযোগ করতে পারে ।
  • Elementor: এলিমেন্টর হল সবচেয়ে জনপ্রিয় প্লাগিন যা একটি ওয়েব পেজ, পোস্ট, বা একটি সম্পূর্ণ ওয়েবসাইট নির্মাণে সাহায্য করবে ।
  • Yoast SEO: এটি এসসিও এর জন্য সেরা প্লাগিন যা এসসিও ফ্রেন্ডলি(SEO-friendly) কন্টেন্ট (Content) এবং অন-পেজ এসইও (On-page SEO) তৈরি করতে সাহায্য করে।
  • Jetpack: জেটপ্যাক সামাজিক শেয়ারকরণ, ওয়েবসাইটের সুরক্ষা, ব্যাকআপ, এবং নিরাপত্তা সহ একাধিক ফিচার সমৃদ্ধ প্লাগিন ।
  • WooCommerce: ওকমার্স অনলাইন শস্পিং(online shopping) তৈরা করার জন্য সেরা একটি প্লাগিন । অর্থাৎ, এটি ব্যবহারকারীকে একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট নির্মাণে সহায়তা করবে ।
  • Really Simple SSL: সাধারণত, ওয়ার্ডপ্রেসে SSL সার্টিফিকেট যোগ করার জন্য কিছু কনফিগারেশন প্রয়োজন. এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে সেইসব কনফিগারেশন করে  থাকে।
  • MC4WP: এটি ইমেইল মার্কেটিং এবং সাইট ভিজিটর্স বাড়ানোর জন্য প্রায় সাবার পছন্দের তালিকায় থাকবেই।
  • Smush: Smush ব্যবহারকারীদের লেজি লোড, ওয়েবপ রূপান্তর, পরিবর্তন সনাক্তকরণ এবং কর্মক্ষমতা বাড়াতে ইমেজ নিখুত এবং অপ্টিমাইজ করতে সাহায্য করবে।
  • Duplicator: ডুপ্লিকেট একটি ওয়েবসাইটকে এক হোস্ট অন্য হোস্টে মাইগ্রেশন করতে ব্যবহৃত হয়।

এছাড়া, ওয়ার্ডপ্রেস জন্য অনেক প্লাগিন আছে। আপনার পছন্দ মত সার্স বক্সে সার্স করে এসব প্লাগিন ইন্সটল করতে পারেন। আপনি নতুন হয়ে থাকলে এখানে দেখুন কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন ইনস্টল করবেন।

ওয়ার্ডপ্রেস থিম কি? (What is WordPress Theme)

ওয়ার্ডপ্রেস থিম

ওয়ার্ডপ্রেস থিম (Theme) একটি ওয়েবসাইটের গঠন বা চেহারা বা আকার নির্ধারণ করে, যা কিছু টেমপ্লেট এবং স্টাইলশিট এর সংমিশ্রণ।  একটি পেশাদারী ওয়েবসাইট তৈরী করার জন্য ওয়ার্ডপ্রেস থিম কাস্টমাইজেশন ও ডেভেলপমেন্ট অপরিহার্য।

আপনি কোডিং জানা ছাড়া একটি থিম কাস্টমাইজ করতে পারেন। কিন্তু একটি থিম ডেভেলপ করতে আপনাকে পিএইচপি (PHP) শিখতে হবে ।

সাধারণত ফ্রি থিম যথেষ্ট ফিচার প্রদান করে না। আপনাকে অবশ্যই একটি প্রফেশনাল ওয়েবসাইটের জন্য একটি প্রিমিয়াম থিম ব্যবহার করতে হবে।

নিঃসন্দেহে ‘Evanto Merket’ একটি প্রফেশনাল প্রিমিয়াম থিম কেনার সেরা মার্কেটপ্লেস। এখান থেকে পছন্দ মত ক্রয় করতে পারেন ।

তবে আপনি চাইলে ফ্রি থিমও ব্যবহার করতে পারেন। ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে অনেক ফ্রি থিম রয়েছে। যেমন:

ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা কোন ধরনের সাইট তৈরি করা যায়?

আপনি এটি ব্যবহার করতে প্রায় সব ধরনের ওয়েবসাইট ডিজাইন এবং ডেভেলপ করতে পারেন । অনেক বিখ্যাত ব্র্যান্ড এবং কর্পোরেট সংস্থা তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট তৈরির জন্য এটি ব্যবহার করছে ।

অধিকাংশ ই-কমার্স সাইট ওয়ার্ডপ্রেস প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে। কারণ এটি ব্যাকইন্ড থেকে নিয়ন্ত্রণ করা খুব সহজ। সবাই কোনও জামেলা ছাড়াই তা সামাল দিতে পারে ।

এটি শেখার মাধ্যমে, আপনি তৈরি করতে পারেন, যেমন:

  • Business Websites
  • Nonprofit Website
  • eCommerce Websites
  • Affiliate Websites
  • Blog Websites
  • Portfolio Websites
  • News Websites
  • Jobs Board Websites
  • Podcasting Websites
  • Academic Websites
  • Photography Websites
  • Knowledgebase Websites
  • Communicates Website

অর্থাৎ ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে প্রায় সকল ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়। সুতরাং ভাল মানের প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করতে ওয়ার্ডপ্রেস শিখতে ভুলবেন না।

এখানে দেখুন খুব সহজেই কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়

ওয়েবসাইটের জন্য কেন ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করবেন?

আপনি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করার মাধ্যমে অনেক সুবিধা পেতে পারেন। যা অন্য কোনো সিএমএস এ পাবেন না।

কিন্তু, স্বাভাবিক ভাবে, আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে কোডিং এবং প্রোগ্রামিং ভাষা জানতে হবে, যেমন HTML, CSS, Javascript, PHP, বা আরো অন্যন্য ভাষা।

ফিচার

সবাই কোডিং এবং প্রোগ্রামিং বুঝতে পারে না। কিন্তু এটি এই বিষয়টা সহজ করে দেয় । এটির মাধ্যমে যে কেউ প্রোগ্রাম না শিখে ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবে।

কোডিং এবং প্রোগ্রামিং লেখার জন্য, একটি ওয়েবসাইট বা একটি পেজ/পোস্ট তৈরি করতে আপনার যথেষ্ট সময় প্রয়োজন। কিন্তু এই চমৎকার টুল ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি তা কয়েক মিনিটের মধ্যে করতে পারেন ।

ওয়ার্ডপ্রেস প্রিমিয়াম থিম, টেমপ্লেট, এবং প্লাগিন এমন অনেক কঠিন ফিচার রয়েছে। যে গুলো এটি একটি ব্যক্তির জন্য তৈরি করা সহজ হয় তোলে। তাছাড়া এটি ব্যহারকারীর সময়, অর্থ, শক্তি সাশ্রয় করে।

কিভাবে শিখবেন?

অন্যান্য প্ল্যাটফর্ম থেকে এটা শেখা সহজ । ইন্টারনেটে ওয়ার্ডপ্রেস টিউটোরিয়াল এবং টিপস এর অভাব নেই।.

যেমন, Udemy-তে পেইড কোর্স করতে পারেন ।  wpbeginner.com এটি শেখার জন্য ভাল মানের বিনামূল্যে ব্লগ টিউটোরিয়াল প্রদান করে । তবে তাদের পোস্ট বা কোর্সগুলো ইংরেজীতে।

আপনি চাইলে বাংলাতেও শিখতে পারেন। এজন্য বিভিন্ন ফ্রি কোর্স রয়েছে। তবে আমি রিমেন্ট করব কোডারস ফাউন্ডশনের মশিউর ভাইয়ের ইউটিউব কোর্সটি।

Free WordPress Course Link: মশিউর ভাইয়ের  ওয়ার্ডপ্রেস ইউটিউব কোর্স

তাছাড়া, আপনার যদি টাকা নিয়ে কোনো সমস্যা না থাকে তাহলে আইটি বাড়ি থেকে ওয়ার্ডপ্রেস কোর্স ক্রয় করতে পারেন। মনে রাখবেন টাকা খরচ করা কোর্সগুলো বেশী ইফেক্টিভ হয়।

আইটি বাড়ি ডিভিডি ও ডাউনলোড লিংক দুটিই প্রদান করে। কোর্সটির বর্তমান মূল্য ১২০০ টাকা।

Paid WordPress Course Linik: আইটি বাড়ির কোর্স

তাছাড়া বাংলাদেশের জনপ্রিয় দুটি অনলাইন কোর্স হলো রেপ্টো ও বহুব্রীহি। আপনি চাইলে তাদের কাছ থেকেও শিখতে পারনে নিচে তাদের লিংক দেওয়া আছে।

কীভাবে ওয়ার্ডপ্রেস পাবেন?

সাধারণত, জনপ্রিয় CMS (Content Management System) এর অধিকাংশই যথা Shopify, Magento ক্রয় করে ব্যবহার করতে হয়। এই কা রণে, নতুনদের জন্য এই টুলগুলি শিখতে এবং ব্যবহার করতে কষ্টকর।

কিন্তু ওয়ার্ডপ্রেস ফ্রি । সবাই কোনো ফি ছাড়াই এটি ইনস্টল ও ব্যবহার করতে পারে ।

আপনি আপনার ওয়েবসাইট বা লোকালহোস্টে এ দুটি উপায়ে ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করতে পারেন।

  • Automatically
  • Manually
  • Automatically: আপনার Cpanel লগইন করার পর, Cpanel এর নীচে ওয়ার্ডপ্রেস পাবেন । তারপর এখান থেকে ইনস্টল করতে পারেন। খুবই সহজ, মাত্র কয়েক ক্লিক লাগবে । 
ডাউনলোড
  • Manually: প্রথমে, ওয়ার্ডপ্রেস এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যান এবং ওয়ার্ডপ্রেস জিপ ফাইল ডাউনলোড। আপনার public_html ডিরেক্টরীতে সেই ফাইলটি Extract করুন এবং ইনস্টল করে নিন । বিস্তারিত এখানে

শেষ কথা

আশা করি “ওয়ার্ডপ্রেস কি” এই বিষয়ে আপনারা ভাল একটি ধারণা পেয়েছেন। আপানর যদি সময় থাকে তাহলে অবশ্যই এটি শিখবেন।

কেননা অনলাইন জগতে এটি আপনাকে এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে। তাছাড়া এটি দিয়ে খুব সহজেই ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়।

যার ফলে আপনি চাইলেই ব্লগিং কিংবা এ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করতে পারবেন।

Leave a Reply